আন্তর্জাতিক

ফিলিস্তিনে মৌলিক মানবাধিকারকে পদদলিত করছে ইসরাইল

  প্রতিনিধি ১১ জুলাই ২০২৩ , ১১:৩০:০০

Spread the love

ফিলিস্তিন বিষয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক স্পেশাল র‌্যাপোর্টিউর ফ্রাঁসেসকা আলবানিজ বলেছেন, ফিলিস্তিনে মৌলিক মানবাধিকারকে পদদলিত করছে ইসরাইল। তারা গণহারে মানুষকে জেলে পাঠিয়েছে। এর মধ্য দিয়ে ফির্লিস্তিনকে একটি ‘ওপেন-এয়ার কারাগারে’ পরিণত করেছে। তারা যা করছে তা যুদ্ধাপরাধ। এই অপরাধ তদন্তের জন্য তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত আইসিসির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ফিলিস্তিনিদেরকে অব্যাহতভাবে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে নজরদারি করা হচ্ছে। দখলীকৃত ভূখণ্ডে ৫৬ বছর ধরে প্রতিরোধ সৃষ্টি করে রেখেছে ইসরাইল। নতুন এক রিপোর্টে এসব কথা বলেছেন আলবানিজ। ওই রিপোর্টে তিনি আরও বলেছেন, ১৯৬৭ সালের পর থেকে ১২ বছর বয়সী শিশুসহ কমপক্ষে ৮ লাখ ফিলিস্তিনিকে তারা গ্রেপ্তার করেছে।

 

কর্তৃত্ববাদী শাসনের অধীনে তাদেরকে আটকে রেখেছে। ইসরাইলি সেনাবাহিনীর এই কর্তৃত্ববাদী শাসন কার্যকর করা হয়েছে। তারা বিচার করছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন আরব নিউজ।
রিপোর্টে আলবানিজ আরও বলেন, ১৬০টি শিশু সহ কমপক্ষে ৫ হাজার ফিলিস্তিনি এখন আটক আছেন ইসরাইলের হাতে। তার মধ্যে ১১০০ ফিলিস্তিনিকে আটকে রাখা হয়েছে কোনো অভিযোগ বা বিচার ছাড়া। আরও বলা হয়েছে, ফিলিস্তিনিদেরকে তাদের সুরক্ষায় মৌলিক নাগরিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করে রাখা হয়েছে। মত প্রকাশ, সমাবেশে যোগ দেয়া, রাজনৈতিক বক্তব্য দেয়ার মতো ঠুনকো কারণে খেয়ালখুশিমতো আটক করা হয় ফিলিস্তিনিদের। ইসরাইলিরা ধরেই নেয় ফিলিস্তিনিরা অপরাধী। এক্ষেত্রে তাদের কাছে কোনো তথ্যপ্রমাণ থাকে না। এ অবস্থায়ই কোনো পরোয়ানা ছাড়া তাদেরকে গ্রেপ্তার করে। অভিযোগ বা বিচার ছাড়া আটকে রাখে। ইসরাইলি হেফাজতে নিয়ে তাদের ওপর চালানো হয় নৃশংসতা।

সোমবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভাতে জাতিসংঘ সদর দফতরে এ রিপোর্ট প্রকাশ করেন ফ্রাঁসেসকা আলবানিজ। এ সময় তিনি বলেন, ইসরাইলি দখলদারিত্বের অধীনে প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে ফিলিস্তিনিরা পর্যায়ক্রমিকভাবে স্বাধীনতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। তাদের জীবন ও মৌলিক মানবিক অধিকার চর্চার কোনো সুযোগ নেই। তিনি আরও বলেন, ইসরাইলি দখলদারিত্বের কয়েক দশকে ফিলিস্তিনিরা যেসব সহিংস কর্মকাণ্ড করেছেন তা তিনি প্রশ্রয় দেন না। বেশির ভাগ দোষী অভিযুক্ত হয়েছেন আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের মধ্য দিয়ে। এর ফলে ইসরাইলি কর্তৃপক্ষের ন্যায়বিচারের প্রশাসনিক বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন আছে। দখলদারিত্বের বিরোধিতায় শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ, ইরাইলি সেনাবাহিনী এবং বসতি স্থাপনকারীদের সুরক্ষা, ঔপনিবেশিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য গণহারে মানুষকে কারাবন্দি করা হয়েছে।

ফ্রাঁসেসকা আলবানিজ আরও বলেন, ফিলিস্তিনিদেরকে সামষ্টিকভাবে নিরাপত্তা হুমকি হিসেবে দেখে ইসরাইল। এ জন্য যারা মৌলিক অধিকার চর্চা করে তাদেরকে শাস্তি দেয়ার জন্য কুখ্যাত সেনা নির্দেশ ব্যবহার করছে। এসব পদক্ষেপকে পুরো একটি জনগোষ্ঠীকে দমিয়ে রাখার হাতিয়ার বানানো হয়েছে। ফিলিস্তিনিদেরকে নিজেদের অধিকার চর্চা থেকে বঞ্চিত রাখা হয়েছে। বর্ণবাদকে জোর করে চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। শক্তি প্রয়োগ করে ভূখণ্ড দখল করা হচ্ছে।

এই রিপোর্টে ইসরাইলি সেনাবাহিনীর হেফাজতে থাকা অবস্থায় জেলে ফিলিস্তিনিরা যে ভয়াবহ নির্যাতনের শিকারে পরিণত হয়েছেন তার বিস্তৃত উদাহরণসহ প্রামাণ্য তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে। এর মধ্যে আছে নির্যাতন, নোংরা ও গাদাগাদি করে সেলে আটকে রাখা, ঘুম এবং খাবার থেকে বঞ্চিত রাখা, চিকিৎসা না দেয়া, ভয়াবহ এবং দীর্ঘস্থায়ী প্রহার এবং সব রকম অসদাচরণ।

রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, ১৯৯২ সাল থেকে ফিলিস্তিনিদের এসব বিষয় আমলে নিয়েছে জাতিসংঘের ওয়ার্কিং গ্রুপ অন আরবিট্রারি ডিটেনশন। তারা বার বার ব্যাপক ও পর্যায়ক্রমে স্বাধীনতা বঞ্চিত রাখাকে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ হিসেবে বলে এসেছে। মানবাধিকারের ভয়াবহ লঙ্ঘনের জন্য ইসরাইলি কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছেন ফ্রাঁসেসকা আলবানিজ। এসব অপরাধ যুদ্ধাপরাধ। এ অপরাধ তদন্তের জন্য তিনি ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল কোর্টের (আইসিসি) প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। ইসরাইলের দখলদারিত্ব ও ফিলিস্তিনের ভূখণ্ড দখল করে তা সম্প্রসারণের ক্রমবর্ধমান উদ্যোগকে স্বীকৃতি এবং সহায়তা না দিতে জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে তাদের বাধ্যবাধকতার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে জাতিসংঘ সনদের অধীনে বিদ্যমান সব কূটনৈতিক, রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক ব্যবস্থা ব্যবহার করে এই পরিস্থিতির ইতি ঘটানোর আহ্বান জানিয়েছেন। আইন লঙ্ঘনের জন্য যারা দায়ী তাদের বিচার নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ব্যাপক এবং পর্যায়ক্রমে খেয়ালখুশিমতো ইসরাইলি শাসকগোষ্ঠী দখলদারিত্বকে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে চাপিয়ে দেয়া আরেকটি বর্ণবাদী আচরণ। অবিলম্বে এর ইতি ঘটা উচিত।

 

আরও খবর

Sponsered content