জাতীয়

শুক্রবার ঢাকা ছেড়েছে ১৪ লাখ, প্রবেশ করেছে সাড়ে ৫ লাখ

  প্রতিনিধি ১ জুলাই ২০২৩ , ১:৩৪:৪১

Spread the love

দেশজুড়ে পবিত্র ঈদুল আজহা পালিত হয় বৃহস্পতিবার। পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ করতে এক সপ্তাহ ধরে রাজধানী ছাড়ে মানুষ। অনেকেই ঈদের পরদিনও ঢাকা ছেড়েছেন। ওই দিন রাজধানী থেকে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে গিয়েছেন ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৫৯০ সিম (চারটি মোবাইল কোম্পানির) ব্যবহারকারী।

শনিবার (১ জুলাই) বিকেলে ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এ তথ্য জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।তিনি জানান, ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে ২৭ জুন থেকে ৩০ জুন এ চার দিনে রাজধানী ছেড়েছে ৮৮ লাখ ৭৭ হাজার ১১৩ সিম ব্যবহারকারী। অন্যদিকে রাজধানীতে ঢুকছে ২৬ লাখ ২০ হাজার ৩৩৯জন। ঈদের পরের দিন শুক্রবার রাজধানী থেকে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে গেছেন ১৪ লাখ ৩১ ৫৯০ সিম ব্যবহারকারী এবং রাজধানীতে ঢুকছেন ৫ লাখ ৫২ হাজার ৯৭৩জন।

শুক্রবার ঢাকা ছাড়াদের মধ্যে গ্রামীণ ফোনের সিমধারী সর্বোচ্চ ৫ লাখ ৮৩ হাজার ৫১৫, রবি ২ লাখ ৩৬ হাজার ৭৭৪, বাংলালিংক ৫ লাখ ৭০ হাজার ৩১১ এবং টেলিটক ৪০ হাজার ৯৯৯।

ঈদের ছুটিতে ২৭ জুন (মঙ্গলবার) ঢাকা ছাড়েন ১৯ লাখ পাঁচ হাজার, ২৮ জুন বুধবার ৩১ লাখ ৪১ হাজার, ঈদের দিন ঢাকা ছাড়েন ২৩ লাখ ৯৮ হাজার ৫০০ সিম ব্যবহারকারী। অন্যদিকে গত চার দিন রাজধানীতে প্রবেশ করেছে ছেড়ে যাওয়ার এক তৃতীয়াংশ। অর্থাৎ ৮৮ লাখ ৭৭ হাজার রাজধানী ছাড়লেও প্রবেশ করেছেন ২৬ লাখ ২০ হাজার সিম ব্যবহারকারী।

আগামীকাল রোববার থেকে সরকারি অফিস, ব্যাংক বিমা খুলছে। তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে আগামী সপ্তাহ থেকে। ধারণা করা হচ্ছে আগামী সপ্তাহের শেষ দিকে পুরোপুরি ছুটি শেষ হবে এবং মানুষ রাজধানীতে ফিরে আসবে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী আরও জানান, একজন একাধিক সিম ব্যবহার করায় এই সংখ্যাটি প্রকৃত ব্যক্তির সংখ্যা নয়। এছাড়া সিম দিয়ে ঈদযাত্রায় ঢাকা ছাড়া মানুষের সঠিক সংখ্যা নির্ধারণ করা সম্ভব নয়। একজন ব্যক্তি একাধিক সিম ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়া ঈদের ছুটিতে ঢাকা ছেড়ে যাওয়া পরিবারগুলোর সঙ্গে শিশুরাও রয়েছে। তাদের নামে সিম নিবন্ধন করা নেই। এমন অনেকেই নাড়ির টানে ঢাকা ছেড়েছেন যারা কোনো মোবাইল সিম ব্যবহার করেন না। এ জন্য সংখ্যাটি ঈদযাত্রার প্রকৃত সংখ্যা নয়।সিম দিয়ে ঈদযাত্রায় ঢাকা ছাড়া মানুষের সঠিক সংখ্যা নির্ধারণ করা সম্ভব নয়। একজন ব্যক্তি একাধিক সিম ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়া ঈদের ছুটিতে ঢাকা ছেড়ে যাওয়া পরিবারগুলোর সঙ্গে শিশুরাও রয়েছে। তাদের নামে সিম নিবন্ধন করা নেই।

আরও খবর

Sponsered content